1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : editor :
  3. [email protected] : moshiur :
বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০২:৫১ পূর্বাহ্ন

নৌকা মার্কা ভোট পেলেই উন্নয়নশীল দেশ গড়তে পারব : প্রধানমন্ত্রী

মহানগর রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময় : মঙ্গলবার, ২ জানুয়ারী, ২০২৪
  • ৫৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমাদের এখন উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে নিজেদের গড়ে তুলতে হবে। এই দেশ গড়ে তুলতে হলে কাকে দরকার? আপনারা বলেন। কে ক্ষমতায় থাকলে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশ গড়ে উঠবে? একমাত্র নৌকা মার্কা, নৌকা মার্কা যদি ভোট পায়, শুধুমাত্র নৌকা মার্কা ভোট পেলেই আমি সরকারে আসতে পারব। আর উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে গড়তে পারব। বাংলাদেশ কখনো পিছিয়ে যাবে না। 

শেখ হাসিনা বলেন, আজকে আমি আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। প্রতি বছরই নির্বাচনের আগে আসি। আগামী ৭ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। এই নির্বাচনে আমি আমাদের প্রার্থীদের আপনাদের কাছে পরিচয় করিয়ে দিতে এসেছি। নৌকা মার্কায় ভোট চাইতে আজকে আমি আপনাদের মাঠে এসে হাজির হয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, শূন্য হাতে ধ্বংসস্তূপের ওপর দাঁড়িয়ে জাতির পিতা যাত্রা শুরু করেন। বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ছিল মাত্র ৯২ ডলার। ওই অবস্থা থেকে মাত্র ৩ বছর সাত মাসের ব্যবধানে এই বিধ্বস্ত দেশে তিনি রাস্তা-ঘাট, স্কুল-কলেজ, মাদরাসা, রেল গড়ে তোলেন। দেশ যখন উন্নয়নের দিকে ধাবিত হয় তখন নেমে আসে এক অমানিশার অন্ধকার। ৭৫ এর  ১৫ আগস্টে সেই দিন জাতির পিতা শেখ মুজিবসহ আমার পরিবারের অন্য সদস্যদের হত্যা করে ওই খুনিরা। যারা আমাদের স্বাধীনতা চায়নি। সাথে ছিল আমাদের কিছু বেঈমান মোনাফেক। সেদিন আমি ও আমার বোন দেশে না থাকায় প্রাণে বেঁচে যাই। তখন রিফুইজি হিসেবে আমাদেরকে থাকতে হয়েছিল।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি-জামায়াতের ক্ষমতায় আসা মানে দুর্নীতি, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, লুটপাট আর দুঃশাসন। এই দুঃশাসনে দেশ অচল হয়ে যায়। আসে ইমারজেন্সি। যদিও আমি বিরোধী দলে ছিলাম আমাকে আগে গ্রেপ্তার করে। আমি জাতির পিতার কন্যা কারও কাছে মাথা নত করি না, মাথা নত করব না। খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসেছিল গ্যাস বিক্রির মুচলেকা দিয়ে। আমি গ্যাস বিক্রি করতে চাইনি বলেই ষড়যন্ত্র করে আমাকে ক্ষমতায় আসতে দেয়নি।

তিনি বলেন,২০০৮ এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ এককভাবে ২৩৩টা সিটে জয়লাভ করে। আর এই বিএনপি বড় বড় কথা বলে,  লম্পঝম্প করে তারা পেয়েছিল মাত্র ৩০টা সিট। যে কারণে তারা ২০১৪ তে নির্বাচন করেনি। ২০১৮ সালের নির্বাচনে মনোনয়ন বাণিজ্য করে নিজেদের মধ্যে গোলমাল করে সরে যায়। আওয়ামী লীগ জনগণের সমর্থন নিয়ে ২০০৯ থেকে শুরু করে ২০২৩ পর্যন্ত ১৫ বছর ক্ষমতায় আছে। আমাদের দেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমরা ২০০৮ এর ঘোষণা অনুযায়ী ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলেছি। প্রত্যেকটা মানুষের কাছে মোবাইল ফোন পৌঁছে দিয়েছি হাতে হাতে। ওয়াইফাই কানেকশন দিয়ে দিয়েছি, সাবমেরিন ক্যাবলের মাধ্যমে আমরা ব্রডব্যান্ড সংযোগ দিয়েছি। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট আমরা উৎক্ষেপণ করেছি। আমাদের ছেলেমেয়েদের জন্য প্রত্যেক স্কুলে আমরা কম্পিউটার ল্যাব করে দিচ্ছি, আমাদের যুবকদের জন্য কম্পিউটার ট্রেনিং সেন্টার তৈরি করে সেখানে তাদেরকে আমরা ট্রেনিং দিচ্ছি, লার্নিং অ্যান্ড আর্নিং, শেখো, কাজ করো এবং উপার্জন করো সেই লক্ষ্য নিয়ে। ছয় লাখ ৮৬ জন ফ্রিল্যান্সার দেশে বসে বিদেশের মুদ্রা উপার্জন করছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনার সময় মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি, অনলাইনে মিটিং করেছি। দেশের জন্য কাজ করেছি। যাদের জায়গা জমি নেই তাদেরকে আমি ঘর করে দিচ্ছি এমনকি ঢাকায় বস্তিবাসীদেরকে ফ্ল্যাট করে দিচ্ছি। প্রতিবন্ধী,বিধবা, বাবা-স্বামীর সংসারে ঠাই হয়নি এমন নারীদের ভাতা করে দিচ্ছি। কোভিড-১৯ যখন শুরু হয় তখন আমাদের সব কিছুর দাম বেড়ে গেছে। তখন দরিদ্র শ্রেণি যেন অভুক্ত না থাকে সেজন্য আমরা প্রায় ৫ কোটি পারিবারিক কার্ডের মাধ্যমে আমরা তাদের খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করেছি। আমরা বিনা পয়সায় জানুয়ারির ১ তারিখে সমস্ত শিশুর হাতে বই দিয়েছি। প্রত্যেকটা স্কুলেই আমরা পর্যায়ক্রমিকভাবে কম্পিউটার ল্যাব আমরা করে দেব। সেই সাথে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগের জন্য ১০৯টি হাইটেক পার্ক আমরা করে দিচ্ছি। সেখানে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ হচ্ছে, আমাদের ছেলে-মেয়েরা কাজ পাচ্ছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমাদের স্বাক্ষরতার হার যেটা আমি ৬৫ দশমিক ৫ এ রেখে গিয়েছিলাম, সেটা ২০০১ এ খালেদা জিয়া ক্ষমতায় এসে কমিয়ে দিয়েছিল। অবশ্য কমিয়ে দেওয়ার কারণ আছে। কারণটা একটু বলতে চাই। একবার মেট্রিক পরীক্ষা দিয়েছিল খালেদা জিয়া। এইট পর্যন্ত পড়েছিল কিন্তু টেনেটুনে মেট্রিক পরীক্ষা দেয়। এই মেট্রিক পরীক্ষায় পাস করেছিল মাত্র দুইটা সাবজেক্টে। একটা হলো উর্দু আরেকটা হল অংক। এই অংক আর উর্দু ছাড়া আর সব কিছুতেই ফেল। অংক ভালো করে শিখেছিল কারণ ভালো করে টাকা গুনতে হয় তো। ক্ষমতায় থেকে দুর্নীতির মেলা টাকা বানানো সহজ। আর উর্দু কেন? কারণ তার মনে সব সময় ওই পাকিস্তান। ‘পেয়ারে পাকিস্তান, হামারা পেয়ার পাকিস্তান।’ এইটাই তার মনে থাকে। খালেদা জিয়ার কথা হচ্ছে সে যখন পাস করে নাই আমাদের ছেলেমেয়ে পাস করবে কেন। আমি স্বাক্ষরতার হার বাড়ালাম ৬৫ দশমিক ৫ ভাগে আর খালেদা জিয়া আবার ক্ষমতায় এসে সেটি ৪৫ ভাগে নামালো। আজকে আমাদের দেশের সাক্ষরতার হার ৭৬ দশমিক ৮। ইনশাআল্লাহ সমস্ত ছেলেমেয়ে আজ স্কুলে যাচ্ছে মেয়েরা স্কুলে যাচ্ছে, শিক্ষক হিসেবে সর্বোচ্চ চাকরি পাচ্ছে। শিক্ষিত জাতি ছাড়া বাংলাদেশকে দারিদ্র্যমুক্ত করা যাবে না। আর জাতির পিতা বলেছেন শিক্ষা বিনিয়োগ এটা কোনো খরচ নয়।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের সব কিছুর উৎপাদন আমরা বাড়িয়েছি ডিম দুধ মাছ মাংস। এক্ষেত্রে আপনাদের কাছে একটা আবেদন থাকবে, ইউক্রেন রাশিয়া যুদ্ধ, স্যাংশন কাউন্টার স্যাংশন, প্রত্যেক জিনিসের দাম বেড়েছে, পরিবহন ব্যয় বৃদ্ধি পেয়েছে ২০০ ডলারের যে গম কিনতাম তা ৬০০ ডলারে কিনতে হচ্ছে। গম ভোজ্য তেল, জ্বালানি তেল, এলএমজি, সার সব আনতে হয় আমাদের বিদেশ থেকে। প্রতিটি জিনিসের মূল্যস্ফীতি। এই পরিস্থিতির মধ্যে দেশের মানুষের উন্নয়ন অব্যাহত রাখা, দেশের মানুষের কষ্ট লাগাব করার জন্য আমরা ব্যাপক কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। পাশাপাশি আজকে সারা বিশ্বব্যাপী  যেহেতু খাদ্য মন্দা অর্থনৈতিক মন্দা চলছে। আমি আপনাদের কাছে আহ্বান করি কারো কাছে কোনো জমি যেন এক ইঞ্চি জমি যেন অনাবাদি না থাকে। যার যেখানে যতটুকু জমি আছে যে যা পারেন তাই উৎপাদন করেন। পুকুর থাকলে মাছ উৎপাদন করবেন। হাঁস-মুরগি ভেড়া গরু ছাগল যে যা পারেন লালন-পালন করেন। আপনিও লাভবান হবেন, দেশও লাভবান হবে। আমি কিন্তু আমার কাজ শুরু করেছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন গণভবন ছোটখাট একটা খামারবাড়ি হয়ে গেছে। সেখানে তরি তরকারি, মধু, আদা, হলুদ, রসুন, পেঁয়াজ, ধান সবই হয়। হাঁস-মুরগি, ছাগল, গরু সবই আছে। আবার লেকে মাছও আছে। মাঝে মাঝে আমি নিজে মাছও ধরি। টুংগিপাড়ায় আমার দাদার জমি, আশপাশের জমি সব জমি আমি পরিষ্কারের ব্যবস্থা করেছি। সেখানে একটি জমিও আর অনাবাদি থাকবে না। কোটালিপাড়ায় করেছি। ফরিদপুরে আপনাদের আহ্বান করব আপনাদের যার যেখানে জমি আছে ১ ইঞ্চি জমিও ফেলে রাখবেন না। যা পারেন উৎপাদন করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা দুর্নীতি করতে আসিনি, নিজেদের ভাগ্য পরিবর্তন করতে আসিনি, আমরা এসেছি বাংলাদেশের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন করতে। পদ্মা সেতু নির্মাণের সময় ওয়ার্ল্ড ব্যাংক যখন একটি দুর্নীতির অভিযোগ আনে, আমি চ্যালেঞ্জ দিয়েছিলাম তারা প্রমাণ করতে পারে নাই।

তিনি আরও বলেন, অনেক ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত আছে। যারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে সমর্থন দেয়নি, তাদের চক্রান্ত এখনো থেমে যায় নাই। যেহেতু তারা জানে আমরা কারও কাছে মাথা নত করি না, সেজন্য চক্রান্ত আরও বেশি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের দেশে একটা সমস্যা দেখা দিয়েছে। আমরা ব্যবসা-বাণিজ্য করার ব্যাপক সুযোগ সৃষ্টি করে দিয়েছি।  অনেককে বলতে গেলে নর্দমা থেকে টেনে তোলা হয়েছে। তাদের পয়সা বানানো, ব্যবসা-বাণিজ্য করার সুযোগ দিয়েছে। মিডিয়া চালানোর সুযোগ দিয়েছি। এখন তারা টাকা ছড়ায়। তারা মনে করে টাকা দিয়েই সব কেনা যাবে। খুব ভালো কথা টাকা তারা ছড়াক। কারণ যত টাকা বানিয়েছে তা তো জনগণের হাতে যাবে। তবে একটা কথা স্মরণ করিয়ে দিতে চাই- টাকা দিয়ে মানুষ কেনা যায় না। টাকা দিয়ে ফরিদপুরের জনগণকে কেউ কিনতে পারে নাই, পারবে না। এই মাটি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের মাটি। এ মাটি খাঁটি মাটি। কাজেই একমাত্র নৌকা, এই নৌকা মার্কা, সেই দেবে আপনাদের সমাধান।

পরে প্রধানমন্ত্রী ফরিদপুর, রাজবাড়ী ও মাগুরা জেলার আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের পরিচয় করিয়ে দেন। প্রধানমন্ত্রী এসব প্রার্থীর পক্ষে নৌকায় ভোট চান।

এ সময় মাগুরা-১ আসনের প্রার্থী সাকিব আল হাসান সম্পর্কে তিনি বলেন, আমাদের একটা রত্ন আছে। এই রত্নটা ক্রিকেট রত্ন। মাগুরা-১ আসনে আমরা এবার নমিনেশন দিয়েছি, সাকিব আল হাসান। সে বলেছে বক্তৃতা দিতে পারে না। আমি বলেছি বক্তৃতা দেওয়ার দরকার নাই। তুমি শুধু বলবা তুমি ছক্কা মারতে পারো, আর বল করে উইকেট ফেলে দিতে পারো, তাহলেই হবে। এইবার ইলেকশনেও ছক্কা মেরে দিও।

ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও ফরিদপুর-৩ (সদর) আসনের আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শামীম হকের সভাপতিত্বে ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহ মো. ইশতিয়াক আরিফের সঞ্চালনায় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন সাকিব আল হাসান, ফরিদপুর-২ আসনের প্রার্থী শাহদাব আকবর, ফরিদপুর-৩ আসনের শামীম হক, ফরিদপুর-১ আসনের আবদুর  রহমান, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া, সাংগঠনিক সম্পাদক বিএম মোজাম্মেল, ফরিদপুর জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও ফরিদপুর পৌরসভার মেয়র অমিতাভ বোস, জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মোহাম্মদ ফারুক হোসেন, মাসুদুল হক, সাইফুজ্জামান সেলিম প্রমুখ।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: সিসা হোস্ট