1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : editor :
  3. [email protected] : moshiur :
শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৫:২৩ অপরাহ্ন

কাতারের কাছে আরও ১ মিলিয়ন টন এলএনজি চায় বাংলাদেশ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : সোমবার, ৬ মার্চ, ২০২৩
  • ১০৭ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান জ্বালানি চাহিদা মেটাতে কাতারের কাছে বার্ষিক আরও ১ মিলিয়ন মেট্রিক টন (এমটিএ) তরলীকৃত প্রাকৃতিক গ্যাস (এলএনজি) চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। জ্বালানি চাহিদা মেটাতে বাংলাদেশের পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানি।

রোববার (৫ মার্চ) স্থানীয় সময় সকালে দোহায় কাতার জাতীয় কনভেনশন সেন্টারে কাতারের আমিরের সঙ্গে বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ অনুরোধ করেন।

পরে পররাষ্ট্র মন্ত্রী একে আব্দুল মোমেন সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন।

পররাষ্ট্র মন্ত্রী জানান, কাতারের আমিরকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ইউক্রেন যুদ্ধের পরে আমাদের এনার্জির বড় সমস্যা হয়েছে। আমরা আরও বেশি জ্বালানি চাই।

এখন বাংলাদেশ কাতার থেকে বছরে প্রায় ৪০ কনটেইনার জ্বালানি, অর্থাৎ ১ দশমিক ৮ থেকে ২ দশমিক ৫ মিলিয়ন মেট্রিক টন আমদানি করে। যেটা আমরা নিচ্ছি সেটা আমরা নবায়ন করবো। সেই সঙ্গে আমরা আরও বেশি এলএনজি চাই।

আব্দুল মোমেন বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে আন্তরিক ভাবে সাড়া দিয়ে কাতারের আমির জানতে চেয়েছেন বাংলাদেশ আরও কত চায়। আমরা বলেছি আমরা আরও ১ মিলিয়ন মেট্রিক টন চাই, আরও ১৬-১৭ কনটেইনার।

তিনি জানান, বাংলাদেশের অনুরোধের পর কাতারের আমির প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, আমি আমাদের জ্বালানি মন্ত্রীকে আজকেই হুকুম দিচ্ছি। আপনি (শেখ হাসিনা) দেশে ফেরার আগেই, আপনার সঙ্গে সাক্ষাত করবে এবং এদিকে যা যা করতে হয় সেটা আমি নির্দেশনা দিবো। আমি আপনাদের সহায়তা করতে চাই। কাতার সব সময় বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাতারের আমিরকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। কাতারের আমির এ বছর বাংলাদেশ সফর করবেন বলে জানান আব্দুল মোমেন।

ফুটবল বিশ্বকাপ সুন্দর ভাবে আয়োজনের জন্য কাতারের আমিরের প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, আসতে চেয়েছিলাম বিভিন্ন কাজে আসতে পারিনি।

সারাদেশে ১০০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠার কথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাতারের আমিরকে বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বিভিন্ন দেশ এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করছে। কাতারও এসব অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগ করতে পারে।

কাতারে প্রবাসী বাংলাদেশী শ্রমিকদের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী আমিরকে বলেন, আপনার এখানে আমাদের বহু শ্রমিক আছে, তাদের আপনি দেখবাল করেন। একটু ভালোভাবে দেখবাল করলে আমরা আনন্দিত হবো। কারণ সম্প্রতি কিছু শ্রমিক এখানে কাজ হারাচ্ছে।

জবাবে কাতার আমির বলেন, তিনি সব সময় বাংলাদেশের মঙ্গল চান, বাংলাদেশের মানুষের কল্যাণ চান।

পরে কাতার জাতীয় কনভেনশন সেন্টারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে আলাদা ভাবে সৌজন্য সাক্ষাত করেন ইউএনডিপির প্রশাসক অচিম স্টেইনার, ইন্টারন্যাশনাল টেলিকমিউকেশন ইউনিয়ন (আইটিইউ) সেক্রেটারি জেনারেল ডরিন বোগান মার্টিন, ইউনাইটেড ন্যাশন্স কনফারেন্স অন ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ইউএনসিটিএডি) এর সেক্রেটারি জেনারেল রেবেকা গ্রিন্সপ্যান।

ইউএনডিপির প্রশাসকের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, যারা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণ হচ্ছে, তারা যেন সকল আন্তর্জাতিক সুবিধা এক সঙ্গে না হারায় সে বিষয়ে ইউএনডিপি কাজ করতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ভালো করেছি আমাদের পুরস্কৃত করা দরকার। সেখানে আমাদের পানিশমেন্ট দেওয়া হচ্ছে। ইউএনডিপির উচিত কিছু কাজ করা, যাতে আমাদের উত্তরণটা স্থিতিশীল হয়।

ইউএনডিপির প্রশাসক বলেন, তারা বাংলাদেশকে নিয়ে গর্ব করেন। বাংলাদেশ অন্য দেশগুলোর জন্য মডেলে পরিণত হয়েছে।

বাংলাদেশের গ্রামীণ অর্থনীতি, ডিজিটালাইজেশনের মাধ্যমে গ্রামে নাগরিক সুবিধা প্রদানে বাংলাদেশের সাফল্যের প্রশংসা করেন অচিম স্টেইনার।

আইটিইউ সেক্রেটারি জেনারেল ডরিন বোগান মার্টিনের সঙ্গে সাক্ষাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশের সাইবার নিরাপত্তা বিষয়ে কারিগরি সহযোগিতা চান।

জাতিসংঘের ন্যাশন্স কনফারেন্স অন ট্রেড অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (ইউএনসিটিএডি) এর সেক্রেটারি জেনারেল রেবেকা গ্রিন্সপ্যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাতে বাংলাদেশের অগ্রগতির প্রশংসা করেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইউএনসিটিএডি এর কাছে বাংলাদেশে বাণিজ্য সম্প্রসারণ এবং বাণিজ্য বহুমুখীকরণ, উৎপাদন সক্ষমতা বাড়ানোর ক্ষেত্রে সহযোগিতা চান।

এসব বৈঠকের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সকালে স্বল্পোন্নত দেশগুলোর পঞ্চম জাতিসংঘ সম্মেলনের (এলডিসি-৫) উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন। এছাড়া বাংলাদেশ, লাওস এবং নেপালের যৌথ আয়োজনে “২০২১ সালের উত্তরণের জন্য টেকসই ও সহজ রূপান্তর” শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ বিন খলিফা আল থানি ও জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেসের আমন্ত্রণে শনিবার (০৪ মার্চ) কাতার সফরে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আগামী ৮ মার্চ তিনি দেশে ফিরে যাবেন।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: সিসা হোস্ট