1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : editor :
  3. [email protected] : moshiur :
বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০২৪, ০৩:৫৯ অপরাহ্ন

৯৯৯-এ আসছে অটোকলার
অপ্রয়োজনীয় কলে জেল-জরিমানা

মহানগর ডেস্ক :
  • প্রকাশের সময় : রবিবার, ১৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২৩
  • ২৬৫ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

৯৯৯; এই একটি নম্বরেই মিলছে ফায়ার সার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি পুলিশি সেবা। নাগরিকদের জরুরি সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে ২০১৭ সালের ১২ ডিসেম্বর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনের পর নম্বরটিতে সারাদেশ থেকেই বেশ সাড়া মিলছে। তবে পরিস্থিতি এখন এমন পর্যায়ে পৌঁছেছে যে ভুক্তভোগীরা থানায় গিয়ে অভিযোগ করার চেয়ে ‘৯৯৯’ এ অভিযোগ জানাতেই বেশি আগ্রহী। জরুরি সেবার এই নম্বরে ভুক্তভোগীরা যেমন ফোন করে অভিযোগ করেন, আবার এমনও ঘটেছে চুরি করতে গিয়ে ধরা পরে পিটুনি খাওয়ার ভয়েও ফোন করে পুলিশি সেবা চাওয়া হয়েছে।

গুরুত্বপূর্ণ এই সেবাটিতে অনেকে মজা করেও ফোন করছেন। আবার অনেকে মিথ্যা তথ্য দিয়েও বিভ্রান্তি করেছেন। জাতীয় এই সেবায় যোগাযোগ করে তাদের কাছ থেকে পাওয়া রেকর্ড ঘেঁটে দেখা গেছে, ৯৯৯-এ অপ্রয়োজনীয় ও মিথ্যা তথ্য দিয়েছে এমন কলের পরিমাণ মোট কলের অর্ধেকের বেশি। গত পাঁচ বছর দুই মাসে এমন অপ্রয়োজনীয় কল এসেছে দুই কোটি ৫৭ লাখ ৮৮ হাজার ৯৩৯টি; যা মোট কলের ৫৮ দশমিক ৮০ শতাংশ। এসব কলের মধ্যে ‘বিরক্তিকর’ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে ২৩ লাখ ১১ হাজার ৯৬৫টি কলকে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এবার বিরক্তিকর কল এড়াতে জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এবার যুক্ত হচ্ছে ‘অটোকলার’। অপ্রয়োজনে ও মজা করার জন্য যেসব কল আসে, সেগুলোকে এই ধরনের কল হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। অটোকলার যুক্ত হলে গ্রাহক ৯৯৯-এ ফোন করলেই তার লোকেশন ও পরিচিতি স্বয়ংক্রিয়ভাবেই চলে আসবে কর্তৃপক্ষের কাছে। ৯৯৯ শুধু গ্রাহকের সমস্যা শুনবে এবং দ্রুত সেবা দেওয়ার চেষ্টা করবে। ৯৯৯-এ অটোকলার যুক্ত হওয়ায় বিরক্তিকর কল কমে যাবে বলে মনে করছেন কর্মকর্তারা।

৯৯৯-এর এক কর্মকর্তা, এখন থেকে কেউ ৯৯৯-এ বিরক্তিকর কল দিলেই তার বিরুদ্ধে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেক্ষেত্রে বিরক্তিকর কলারের ছয় মাসের জেল বা এক লাখ টাকা পর্যন্ত জরিমানা হতে পারে। এমনকি মোবাইল কোর্টের মাধ্যমেও বিচার করা হতে পারে।

এই কর্মকর্তা বলেন, সত্যিকারের বিপদগ্রস্তদের দ্রুত সেবা দেওয়ার লক্ষ্যে অটোকলার চালু করা হচ্ছে। এতে অপ্রয়োজনীয়, মিথ্যা তথ্য বা বিরক্তিকর কল কমে যাবে। ৯৯৯ চালুর পর থেকে অপ্রয়োজনীয় কলের সংখ্যা বেশি ছিল। এখন তা অনেক কমে আসছে। জনগণের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পেয়েছে। ৯৯৯-এর কর্মী বাহিনী দিনরাত ২৪ ঘণ্টা জনগণকে নির্বিঘ্নে সার্ভিস দিয়ে যাচ্ছেন। দেশের সব মহানগর এলাকায় মোবাইল ডাটা টার্মিনাল (এমডিটি) ও থানা ডেসপাস সিস্টেম (টিডিএস) চালু করার ফলে সেবাটি আরও সহজ হয়েছে।

৯৯৯-এর সক্ষমতা

৯৯৯ সেবা বর্তমানে একসঙ্গে ৮০টি কল রিসিভ করতে পারে। প্রতিদিন গড়ে ২২ হাজার কল আসছে। এর মধ্যে সার্ভিসযোগ্য কল আসছে ৪১ শতাংশ। ৯৯৯ এ একজন অতিরিক্ত ডিআইজির নেতৃত্বে ৪৩০ জন কর্মী জনগণের সেবায় কাজ করছেন। ন্যাশনাল টেলিকমিউনিকেশন মনিটরিং সেন্টারের সঙ্গে সমন্বয় করে ৯৯৯-কে অটোমেশন করা হচ্ছে। এটি চালু হলে সময় কমে যাবে, দ্রুত সার্ভিস দেওয়া যাবে। রেন্সপন্স টাইম যত কম লাগবে, ততই দ্রুত জনগণকে সেবা দেওয়া যাবে। ট্রিপল নাইনের মূল লক্ষ্য জনগণকে অল্প সময়ের মধ্যে সর্বোচ্চ সেবা দেওয়া।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: সিসা হোস্ট