1. [email protected] : admin :
  2. [email protected] : editor :
  3. [email protected] : moshiur :
রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৫ অপরাহ্ন

রাজশাহীতে এমপি ফারুকের কার্যালয়ের আ.লীগ কর্মীর লাশ: সিসিটিভির ফুটেজ গায়েব!

মহানগর রিপোর্ট :
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৪ ডিসেম্বর, ২০২৩
  • ৮৮ বার এই সংবাদটি পড়া হয়েছে

রাজশাহী-১ (গোদাগাড়ী-তানোর) আসনের সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরীর মালিকানাধীন ভবনের সেপটিক ট্যাংকে আওয়ামী লীগ কর্মী লাশ উদ্ধারের ঘটনায় ক্রমেই রহস্য বাড়ছে। বিশেষ করে ঘটনাস্থলের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ গায়েবের ঘটনায় গভীর রহস্য জন্ম দিয়েছে। ফলে পুরো ঘটনাটির রহস্য উদঘাটন না হওয়া পর্যন্ত তদন্তকারী সংস্থাগুলোও বিষয়টি নিয়ে এখনোই কোনো মন্তব্য করতে রাজি হচ্ছে না।

অন্যদিকে গত দিনেও এ নিয়ে এখনও মুখ খোলেননি এমপি ফারুক। এমনকি তাঁর ভবনের নিরাপত্তায় ঘেরা সেপটিক ট্যাংকের মধ্যে নিহত নয়নাল উদ্দিনের (৬০) লাশ গত মঙ্গলবার সকালের দিকে খোঁজ মিললেও গতকাল পর্যন্ত ঘটনাস্থলে উপস্থিত হননি সাংসদ ফারুক।

এদিকে নয়নালের মৃতদেহ বুধবার রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ মর্গে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। প্রতিবেদন তৈরী করতে আরও দুই-একদিন সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্ট চিকিৎসকরা।

নিহত নয়নালের স্বজনরা মনে করছেন, নয়নালকে হত্যা করে লাশ ফেলে রাখা হয়েছিল। ঘটনার আলামত নষ্ট করতে সিসিটিভি ফুটেজও গায়েব করা হয়েছে এমপি ফারুকের মালিকানাধিন থিম ওমর প্লাজা নামের ওই ১০ তলা ভবনের। যদিও মামলায় আসামি হিসেবে কারও নাম উল্লেখ করেননি নিহত নয়নালের বোন মামলার বাদী কুলসুম বেগম।

পুলিশের তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানান, পুরো এলাকাটিই সীমানা প্রাচীরে ঘেরা। নিরাপত্তা প্রহরীদের এড়িয়ে সেখানে বাইরে থেকে কেউ ঢোকার সুযোগ নেই। এরই মধ্যে ওই ভবনের গত কয়েকদিনের সিসিটিভি ফুটেজও গায়েব হয়ে গেছে। ফলে ঘটনাটি নিয়ে রহস্য আরও বেড়েছে।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, সাংসদ ফারুক চৌধুরীর ভবন ও রাজনৈতিক কার্যালয়ের পাশ দিয়ে ওই ম্যানহোলের দিকে কাউকে যেতে হলে তাকে একটি সিসি ক্যামেরার আওতায় পড়তে হবে। তবে রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের সিসি ক্যামেরাটিই নাকি নষ্ট। থিম ওমর প্লাজার সিসি ক্যামেরার দায়িত্বে থাকা কর্মচারী মো. শান্ত পুলিশকে এ তথ্য জানিয়েছেন। রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের প্রধান ফটক দিয়ে কেউ ভেতরে না ঢুকে থিম ওমর প্লাজার গ্যারেজের অংশ দিয়ে ভেতরে ঢুকলে ভিতরের একটি ক্যামেরায় দেখা যাবে। কিন্তু নিরাপত্তা প্রহরী এবং রাতে তালাবদ্ধ করে রাখা ফটক পার হয়ে সেদিক দিয়েও যাওয়া সম্ভব নয়। ফলে রাজনৈতিক কার্যালয়ের সামনের ক্যামেরার ফুটেজ পাওয়া গেলেই তদন্ত অনেক দূর এগিয়ে যেত। কিন্তু সেই ক্যামেরার ফুটেজই পাওয়া যায়নি।

নিহত নয়নালের ভাগ্নে সোহেল রানা অভিযোগ করে সাংবাদিকদের সামনে বলেন, যে ট্যাংকে লাশ পাওয়া গেছে তার অর্ধেক অংশে ঢাকনা ছিল, অর্ধেক অংশ ছিল ফাঁকা। রিজার্ভ ট্যাংকের পাশের দুই শৌচাগার এখনও ব্যবহার হয়। একটা লাশ পঁচে গেল, কেউ দেখল না এটা খুব রহস্যজনক। তাই আমরা মনে করছি আমার মামাকে হত্যার পর লাশ গুম করতে সেপটিক ট্যাংকিতে লাশ ফেলে রাখা হয়েছিল।

জানতে চাইলে নয়নাল হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নগরীর শিরোইল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘এখনও আমরা সেভাবে তদন্ত শুরু করতে পারিনি। একটা সিসি ক্যামেরার ফুটেজ পেয়েছি। সাতদিনের এই ফুটেজ এখনও দেখা হয়নি। তবে যে ক্যামেরাটি গুরুত্বপূর্ণ, সেটিরই ফুটেজ পাইনি। ওই ক্যামেরা নাকি নষ্ট।’

তিনি বলেন, ‘লাশের ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পেলে নয়নালের মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত করে বলা যাবে। এমনিতে লাশ দেখে কিছু বোঝা যায়নি। কারণ, দুই থেকে তিনদিন আগে মারা যাওয়ার কারণে লাশে পচন ধরেছিল। তারপরেও আমরা তদন্ত করে দেখব।’

নিহত নয়নাল রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের প্রায় সবার কাছেই নয়নাল ছিলেন পরিচিত মুখ। রাজশাহী সিটি করপোরেশনের নগর ভবনেও নয়নালের যাতায়াত ছিল। আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও সিটি মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন তাঁকে খুব ভালবাসতেন। তিনি ১০-১২ বছর ধরে প্রতিমাসেই হাতখরচের জন্য নয়নালকে টাকা দিতেন।

অন্যদিকে নিজ ভবন ও রাজনৈতিক কার্যালয়ের সেপটিক ট্যাংকে নয়নালের লাশ থাকার বিষয়ে রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি ও সংসদ সদস্য ওমর ফারুক চৌধুরী কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। তিনি বলেন, পুলিশ তদন্ত করছে। তারায় বলবে।’

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রযুক্তি সহায়তায়: সিসা হোস্ট